তরুণদের প্রতি ওয়ারেন বাফেটের ১০টি উপদেশ

Reading Time: 3 minutes

বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের একজন হওয়ার সাথে সাথে অসাধারণ জীবন যাপনের জন্য আলোচিত ওয়ারেন বাফেট। মার্কিন এই ‘বিজনেস ম্যাগনেট’, উদ্যোক্তা এবং সমাজকর্মীকে বিশ্বের সবচেয়ে সফল উদ্যোক্তাদের একজন বিবেচনা করা হয়। বিশ্বের অন্যতম ধনী এই ব্যক্তি ২০১২ সালে টাইম ম্যাগাজিনে সর্বোচ্চ প্রভাবশালী ব্যাক্তি হিসেবে নাম লিখিয়েছেন। সবসময় তরুনদের অনুপ্রাণিত করা ওয়ারেন বাফেটের অসংখ্য উপদেশের মধ্যে সেরা দশটি উপদেশ হচ্ছে:

১. কোথাও বিনিয়োগ করার আগে নিজের উপর করুন

অনেকেই মনে করে যত অল্প বয়সে বিনিয়োগ করা যায় ততই মঙ্গল। কিন্তু উপদেশটা শুনতে যতো মধুর লাগে ব্যাপারটা ততো সহজ নয় আসলে। উপযুক্ত জ্ঞান না নিয়ে বিনিয়োগ শুরু করলে পুরোটাই জলে যেতে পারে। অবাধ তথ্য প্রবাহের এই যুগে বসবাস করে শিখে নিতে হবে যত পারা যায়। জানাশুনা ও জ্ঞান বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দিতে সবার আগে। নিজের উপর এই বিনিয়োগটিই সবার আগে করতে হবে বলে মনে করেন ওয়ারেন বাফেট। কারণ ব্যক্তি নিজেই তার নিজের জন্য সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ।

২. খারাপ অভ্যাস ত্যাগ করুন আগে

খারাপ অভ্যাস বা বদভ্যাস থেকে যত দ্রুত মুক্ত হওয়া যায় ততই মঙ্গল। নিজের খারাপ অভ্যাসের কথা বলতে গিয়ে ওয়ারেন বাফেট বলেন তার খরচ করার স্বভাব ছিল। দেখা যেত পকেটে টাকা আসার আগেই খরচ করে ফেলতেন বা ধারদেনা করে খরচ করতেন। এরকম বেহুদা খরচ থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দেন বাফেট। এছাড়া ডেভিট ও ক্রেডিট কার্ডের অতিরিক্ত ব্যবহারও ক্ষতিকর বলে মনে করেন বাফেট।

Source: justjobsbook.com

৩. এমন কোন ব্যবসায় বিনিয়োগ করো না, যা তুমি বোঝো না।

প্রযুক্তিগত ব্যবসা সম্পর্কে বাফেটের তেমন ধারণা না থাকায় তিনি কখনো তাতে বিনিয়োগ করেন না, সে ব্যবসায় যতই লাভজনক হোক না কেন। তাই তিনি অন্যদেরও এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে বলেন। কোনো ব্যবসাতে বিনিয়োগ করার আগে তিনি বিনিয়োগকারীকে তা সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা রাখতে বলেন। অর্থাৎ, তা কীভাবে লাভ করে, ভবিষ্যতে তা থেকে কী পরিমাণ লাভ হতে পারে ইত্যাদি।

৪. সফল হবার জন্য অনেক কম কাজ করতে হবে যদি ভুল কম করো

একজন সফল উদ্যোক্তা হতে হলে অনেক সাবধানে কাজ করতে হবে এবং যতটা সম্ভব ভুলগুলোকে এড়িয়ে চলতে হবে। কেননা, ছোট একটা ভুলই অনেক সময় অনেক বড় ব্যর্থতার কারণ হয়ে যায়।

Source: Soul Renovation

৫. মিশতে হবে সঠিক মানুষদের সঙ্গে

মানুষ তার আশপাশ দ্বারা প্রভাবিত হয়। তাই সবসময় নিজের থেকে সফল এবং দক্ষ মানুষদের সাথে মিশতে হবে। এতে করে নিজের মাঝেও সেই গুণগুলো বিকশিত হয় এবং সফল হবার অনুপ্রেরণা পাওয়া যায়।

৬. অতীত থেকে শিক্ষা নিতে হবে
ব্যবসায়ের জগতে ভবিষ্যৎ সর্বদা অনিশ্চিত। তাই ভবিষ্যতে কী হবে তা কল্পনা করার থেকে অতীতকে বিশ্লেষণ করে, তার থেকে শিক্ষা নিয়ে সে শিক্ষাকে কাজে লাগালে ভবিষ্যৎ এমনিতেই ভাল হবে।
কিন্তু এর মানে এই না যে অতীতই সবসময় ভবিষ্যতকে নির্ধারণ করবে। তার বিপরীত হওয়াটাও স্বাভাবিক।

৭. নিজের ওপর আস্থা রাখতে হবে
শুধু বড় স্বপ্ন দেখেই গেলাম, কিন্তু “আমাকে দিয়ে হবে না” চিন্তা করে সেই স্বপ্ন পূরণের জন্য চেষ্টা করলাম না, এমনটা করলে হবে না। “আমি হতে চাই” না ভেবে ভাবতে হবে, “আমি হয়ে দেখাবো।

৮. সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে হবে
সুযোগ সবসময় আসে না তাই সবসময় সুযোগকে ১০০% কাজে লাগাতে হবে।

৯. প্রয়োজনে ‘না’ বলা শিখতে হবে
ব্যবসায়ের জগতে, কোনো প্রস্তাব ভাল লাগছে না… কিন্তু ভদ্রতা কিংবা সামাজিকতা রক্ষার্থে ‘না’ বলতে পারছি না, এমনটা করলে হবে না। স্পষ্ট করে ‘না’ বলে দিতে হবে।

১০. কখনো পকেট পুরোপুরি খালি করে ফেলো না
এই উপদেশটা ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি আলোচিত হয়েছে। উদ্যোগ গ্রহণের জন্য অন্যান্য সকল কৌশলের সাথে অর্থও গুরুত্বপূর্ণ। তাই, উদ্যোগ গ্রহণের সময় কেউ যদি তার সকল অর্থ-সম্পদ হারিয়ে ফেলে, তাহলে লাভ তো দূরের কথা, তার পূর্বাবস্থায় ফেরৎ যাওয়াটাই কষ্টকর হবে।

সূত্র: লাইফহ্যাক, সিম্পলি সেইফ

ফিচার ফটো: ওমাহা ওয়ার্ল্ড হেরাল্ড

Spread the love

Related Posts

Add Comment

error: Content is protected !!