দর্শনের গুরুপাঠ: রাসেলের পরামর্শ

Reading Time: < 1 minute
PC: Internet

PC: Internet

আধুনিক দর্শন চর্চায় বার্ট্রান্ড রাসেলের (১৮ মে ১৮৭২ – ২ ফেব্রুয়ারি ১৯৭০) অবদান গুরুত্বপূর্ণ। এই বিখ্যাত গণিতবিদ পাশ্চাত্য দর্শনের বিষয়গুলোকে গুছিয়ে হাজির করেছিলেন ইংরেজি ভাষাভাষী লোকদের কাছে। দর্শনের সাহিত্য লিখেছেন। তাই নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন সাহিত্যে। গণিতেও তার অবদান বিশেষ।

তার একটা উল্লেখযোগ্য বইয়ের নাম- দর্শনের সমস্যাবলী (দ্যা প্রবলেমস অব ফিলসফি)। এই বইয়ের শেষে সংযুক্ত বিবলিওগ্রাফিক্যাল নোট আছে। এখনকার বইয়ের বিবলিওগ্রাফির মত নয় বিষয়টা।

সম্পূর্ণ নোটটা পড়লে বুঝবেন কেন গুরুত্বপূর্ণ। এখানে বাংলায় দিলাম।

“দর্শনের একটি প্রাথমিক জ্ঞান অর্জনের ইচ্ছা যে শিক্ষার্থীর আছে তার জন্য হ্যান্ডবুক থেকে অলরাউন্ড ধারণা না নিয়ে বড় বড় দার্শনিকদের কিছু লেখা পড়া একই সাথে সহজ এবং বেশি লাভজনক হবে। নিচেরগুলো বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ:

প্লেটো: রিপাবলিক, বিশেষভাবে ৬ষ্ঠ এবং ৭ম অধ্যায়।

দেকার্তে: মেডিটেশনস।

স্পিনোজা: এথিকস।

লাইবনীজ: দি মোনাডলজি।

বার্কলে: থ্রি ডায়ালগস বিটুইন হাইলাস এন্ড ফিলোনাস।

হিউম: এনকুয়েরি কনসার্নিং হিউম্যান আন্ডারস্ট্যান্ডিং।

কান্ট: প্রোলেগোমেনা টু এনি ফিউচার মেটাফিজিক।”

-লেখক : লোকমান বিন নুর

Spread the love

Related Posts

Add Comment

error: Content is protected !!