বুদ্ধদেব গুহ’র সবিনয় নিবেদন

Reading Time: 3 minutes

আমি রোমান্টিক উপন্যাস পড়তে বরাবরই পছন্দ করি, কল্পনাবিলাসী বলেই হয়তো। তাই হাতে নিয়েছিলাম বুদ্ধদেব গুহর সবিনয় নিবেদন উপন্যাসটি। এর আগে এই লেখকের মাধুকরী, হলুদ বসন্ত মনে এখনও দাগ কেটে আছে। পড়তে শুরু করে যখন শেষ করলাম তখন বুঝতে পারলাম বইটি যেই প্রত্যাশা নিয়ে পড়তে শুরু করেছিলাম সেই প্রত্যাশা ছাড়িয়ে গেছে।

প্রেম আর প্রকৃতি দুটিই মিলেমিশে একাকার হয়ে গেছে বইটিতে।  চমক কিন্তু এখানেই শেষ হয়নি বইটি পড়া শুরু করেই আমি বুঝতে পারি এই বইটি নতুন আঙ্গিকে লেখা এটা একটা পত্র উপন্যাস! বুদ্ধদেব গুহ’র পাঠক মাত্রই জানেন এই লেখকের উপন্যাসে পত্রের আলাদা এক অবস্থান থাকে। কিন্তু সবিনয় নিবেদন তো পুরোটাই পত্র! পত্রই এখানে উপন্যাস!

পত্র কি কখনও উপন্যাস হতে পারে? বুদ্ধদেব গুহর সবিনয় নিবেদন বইটি হতে পারে তার এক সুন্দর উদাহরণ। বুদ্ধদেব গুহ তার এই বইতে খুব সুন্দর করে পত্রকে অন্য মাত্রায় নিয়ে গেছেন।

বইটি শুরু হয় গল্পের নায়িকা ঋতির চিঠির মধ্য দিয়ে এক সময় এই চিঠিই হয়ে উঠে এক বিস্ময়কর প্রণয় উপাখ্যান।

আমার মনে এখনও দাগ কেটে আছে ঋতির প্রথম পত্রটি যেখানে রাজর্ষি ঋতিকে রক্ষা করে জংলী হাতির পাল থেকে। লেখক উপন্যাসে কিছু মিথ ব্যবহার করেছেন যা সহজেই নজর কাড়ে। শুধু  যে প্রেম এই বই এর মূল বিষয়বস্তু  তা নয়-  নারী  পুরুষের প্রেমের সম্পর্কের সাথে সাথে বইটিতে উঠে এসেছে একই সাথে বিহার, কলকাতা, কেনিয়া ,তাঞ্জিনিয়ার প্রাকৃতিক রূপ বৈচিত্র্যর বর্ণনা। এই বইতে উঠে এসেছে এই সব এলাকার  বনের  রূপ  সেইখানের মানুষের জীবনযাপন, প্রকৃতি, পারিপার্শ্বিকতা রয়েছে  বিহার এর  সাথে  তুলনা  করে কলকাতার সমালোচনা কলকাতার পরিবেশের নগ্নতা।  শুধু তাই নয় দুই মানব মানবীর প্রেম, বিরহ তাদের চিন্তা ভালোলাগা ভালোবাসা খুব সুন্দর করে বুদ্ধদেব গুহ তার এই উপন্যাসে তুলে ধরেছেন।

প্রথমেই ঋতির চিঠি দিয়ে শুরু তারপর রাজর্ষির চিঠি, তারপর শুরু হয় চিঠির আদান প্রদান বা প্রেম নিবেদন। এই প্রেম নিবেদনই তো সবিনয় নিবেদন। শুধু প্রেম আছে বইটিতে তা তো নয় আছে বিরহপর্বও।  ঋতি বম্বে চলে  যায়  তৈরি হয় দূরত্ব। বড় প্রেম শুধু কাছে আনে না দূরেও ঠেলে দেয় সেই ভাবেই শুরু হয় ঋতি  আর রাজর্ষি বিরহপর্ব।

কাজ করতে রাজর্ষি যখন আফ্রিকা চলে যায় আবারো শুরু হয় বিরহপর্ব ।

আমাকে সবচেয়ে বেশি মুগ্ধ করেছে আফ্রিকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের সুন্দর বর্ণনা। তাঞ্জিনিয়া আর নাইরোবি কেনিয়ার বিস্মৃত প্রাকৃতিক রূপের নিখুঁত বর্ণনা। আফ্রিকার বিশাল বনভূমি, ধূ ধূ  প্রান্তর এবং জঙ্গল পাহাড় পেরিয়ে হাতি, গণ্ডার সিংহদের মধ্যে দিয়ে সিথির মতো সরু পথ বেয়ে প্রকাণ্ড Refrigerated van দিয়ে আমারও চষে বেড়াতে ইচ্ছা করেছে পুরো আফ্রিকা। থাকতে ইচ্ছা করেছে সেরানর লজে ব্রেকফাস্ট খাবার  সময় জিরাফ জানালা দিয়ে মুখ বাড়ায়। এক জোড়া উঠপাখি যেখানে রোজ সকালে ডাইনিং রুমে ঘুরাঘুরি করে। বিকালে যেখানে গোধূলির আলো রহস্য সৃষ্টি করে ।

পুরো বইটিতে রাজর্ষি আর ঋতির চিঠির সাথে আছে শ্রুতি আর ঋতির ছোট চাচার চিঠি। শ্রুতি ঋতির বন্ধু কাম চাচী রাজর্ষি যার বর্ণনা লিখে চিঠিতে অল্পবয়সী কাকিমা। শ্রুতি মূলত একটা আটপৌরে বাঙালি নারীর চিত্র। অন্যদিকে ঋতিকে আমার সবসময়ই মনে হয়েছে স্বাধীন , স্বাবলম্বী , যে বহন করে বা বয়ে আনে সবসময় একরাশ মুগ্ধতা। “রাজর্ষির কথামতো ঋতি হচ্ছে ভেনাস এর রূপ সন্ধ্যাতারার মতো উজ্জ্বল, পূর্ণিমার রাতে যে মসৃণ পালকের ডানা মেলা হলুদ পাখি চাদের  দিকে উড়ে যায় তার থেকেও মসৃণ; তুমি পরমা প্রকিৃতি নারী” ঋতি তোমাকে প্রণাম “

এছাড়াও ঋতির সরলতা আর রাজর্ষির দৃঢ় চরিত্র মুগ্ধ করার মতো।  আছে নারী মুক্তির কথাও, এখানে ঋতিকে একজন সাবলম্বী নারী হিসাবেই দেখা যায় যে অনায়াসে তার বহুদিনের বন্ধুকে ত্যাগ করে তার আত্মসম্মানে আঘাত লাগে বলে। নারী মুক্তির জন্য নারীদেরকেই এগিয়ে আসতে হবে। মেয়েরা আর পাখিরা ঘর বাধাকে একই ভাবে দেখে এরা দুইজন ভাবে ঘর বাধতে না পারলে  এদের জীবন বৃথা । এই ভাবনাটা নতুন করে আমাকেও ভাবতে শিখয়েছে।

হেমিংওয়ে বলতেন, তুমি চোখ দিয়ে যা দেখো, ইন্দ্রিয় দিয়ে যা অনুভব করো, আঙুল দিয়ে  যা স্পর্শ করো তার সবটুকুই পাঠক পাঠিকাকে দিবে, এমনভাবে দিবে যেন কিছুই বাদ না থাকে। বুদ্ধদেব গুহ তাই করেছেন এই  বইটিতে  আমার মনে হয়েছে তিনি তার অনুভব শক্তির সবটুকুই এই বইতে ঢেলে দিয়েছেন ।

পত্র ছেড়ে  রাজর্ষি

যখন সামনে আসে তখন ঋতি বলে  একে তো চিঠির মতো অতো  ভালো লাগছেনা। তবে কি সব মুগ্ধতা চিঠিতেই ছিল!  বাস্তবে কি কিছু নেই !  না হতাশ করেনি বুদ্ধদেব গুহ হতাশ করেনি ঋতি, চিঠির মতোই সে শেষ পর্যন্ত মুগ্ধ রাজ যোগ ঋষিতে।

বইটি পড়ে আমার মনে হয়েছে বইটি হতে পারে অবসরের বিকালে পড়ার জন্য সুখপাঠ্য।  আর যারা আমার মতো প্রেমের উপন্যাস পড়তে পছন্দ করেন তাদের জন্য অবশ্যপাঠ্য।

-লেখিকা: আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

 

Spread the love

Related Posts

Add Comment

error: Content is protected !!