ভিক্টোরিয়া কলেজে বিডিএসএফ এর শুভযাত্রা

Reading Time: 3 minutes

‘বাংলাদেশের চোখে বিশ্ব দেখি’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরাম (বিডিএসফ) এর ঝান্ডাবাহী কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিত্বকারী একটি দল গত ২১শে মে, বরিবার বিকাল ৩:০০ টায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের কলা ভবন প্রাঙ্গণে এক প্রাণবন্ত ‘বিডিএসফ আড্ডার’ আয়োজন করে। যার মধ্য দিয়ে কুমিল্লা জেলার প্রায় ১৩০ বছরের পুরাতন এবং বিখ্যাত ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের কিছু স্বাপ্নিক, তরুণ ও মেধাবী শিক্ষার্থীগণ বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের নেতৃত্বে  জ্ঞান ভিত্তিক সমাজ গঠনের তাত্ত্বিক আন্দোলনে শামিল হওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে। এর মাধ্যমে কুমিল্লা সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরাম (বিডিএসএফ) এর শুভ সূচনা হয় এবং যা ইতিমধ্যে “BDSF CVC” নামে পরিচিতি লাভ করেছে।

যে প্রতিষ্ঠান কে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরাম তার নতুন কার্যক্রম শুরু করেছে আমরা শুরুতেই সেই বিদ্যাপিঠের একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস জেনে নেই। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের গোড়া পত্তন করেন রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায়। তিনি ১৮৯৯ সালের ২৪শে নভেম্বর মহারাণী ভিক্টোরিয়ার “জুবিলি জয়ন্তী” স্মারক চিহ্ন স্বরূপ রানী ভিক্টোরিয়ার নামে এই কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। প্রথম থেকেই এটি কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এফিলিয়েটেড কলেজের সারিতে দাঁড়াতে সমর্থ হয়েছিল। পরবর্তীতে ১৯৬৩-৬৪ সালের দিকে কলেজটি প্রথম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে, ১৯৬৪ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এবং সর্বশেষ ১৯৮৪-৮৫ সাল থেকে কলেজটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ হিসেবে মর্যাদা পায়।

চলছে বিডিএসএফ এর আলোচনা উপস্থাপন

২২ টি বিভাগের ৩০ হাজার শিক্ষার্থীর এই সুবিশাল ও নয়নাভিরাম ক্যাম্পাসে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরাম (বিডিএসএফ) এর শুভ যাত্রা লগ্নে উপস্থিত ছিলেন বিডিএসএফ এর কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় টীম। অনুষ্ঠানে বিডিএসএফ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় টীমের প্রতিনিধিত্ব করেন আতিকুর রহমান, আব্দুল আজিজ, হাফছা জাহান, কামাল হোসেন, এমদাদুল এইচ সরকার, এ এইচ আরাফ সহ একঝাক তরুণ, উদ্যমী সংগঠক।

আতিকুর রহমানের সঞ্চালনায় প্রথমেই আব্দুল আজিজ উপস্থিত শ্রোতামন্ডলীর সামনে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও মূলনীতিসমূহ ব্যখ্যা করেন। তিনি একাডেমিক পড়াশোনার বাইরে জ্ঞানচর্চায় বাংলাদেশ ও বিশ্ববীক্ষা অধ্যায়নের মাধ্যমে নিজেদের চিন্তা ও দক্ষতার পরিধি বৃদ্ধি করে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

বিডিএসএফ টীম আড্ডার একাংশ

আলোচনা অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় বক্তা হিসেবে হাফছা জাহান বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের কর্মপরিকল্পনা ও আর্থিক ব্যবস্থাপনার উপর আলোকপাত করেন। তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের জ্ঞান পিপাসু বন্ধুদের সম্মুখে সপ্তাহে একটি বই, মাসে ৪টি এবং দুই মাসে বিশটি বই পড়ার পাঠ পরিকল্পনাটি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে উপস্থাপন করেন।

পরবর্তী বক্তা কামাল হোসেন বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের সাপ্তাহিক ও পাবলিক কার্যক্রম আয়োজনের পূর্ব প্রস্তুতি ও কার্যক্রম বাস্তবায়নের রূপরেখা তুলে ধরে বিডিএসএফ এর এই প্লাটফর্মকে দূরবর্তী আকাশে নক্ষত্র দেখার টেলিস্কোপের সাথে তুলনা করেন, যার মাধ্যমে বিশ্ববীক্ষা অর্জনের দুর্গম পথ পাড়ি দেয়া তরুণ সমাজের পক্ষে সম্ভরপর হবে।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে বিডিএসএফ এর অত্যন্ত আলোচিত ‘প্রশ্ন-উত্তর’ পর্বে এমদাদুল এইচ সরকার বাংলাদেশ স্টাডি ফোরাম নিয়ে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের সাধারণ কিছু জিজ্ঞাসার চমকপ্রদ উত্তর প্রদান করেন। সর্বশেষ বক্তা এ এইচ আরাফ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের কার্যক্রম ও বর্তমান অবস্থা তুলে ধরে বিভিন্ন ক্যাম্পাসের লেকচারের সংখ্যা ও গুরুত্বপূর্ন দিকসমূহ সহজ ও মননশীল ভাষায় ব্যাখ্যা করেন।

বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল প্রাঙ্গণে ফ্রেমেবন্দি বিডিএসএফ সদস্যরা

আলোচনা শেষে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিডিএসএফ, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ শাখার ফেসবুক গ্রুপ ওপেন করা এবং কলেজের বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল প্রাঙ্গণে একটি গ্রুপ ফটোসেশনের মাধ্যমে উক্ত কলেজে স্টাডি ফোরামের শুভ সূচনা করা হয়।

বাংলাদেশ স্টাডি ফোরামের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ শাখার শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান টি সফলভাবে সম্পন্ন করার পেছনে উক্ত কলেজের কিছু জ্ঞানেন্বেষী, পরিশ্রমী বন্ধু তাসলিমা নিশা, ইয়াছিন, জুয়েল, তোফায়েলদের অবদান অনস্বীকার্য। আপনাদের উষ্ণ অভ্যর্থনা ও আন্তরিকতায় আমরা পুরো বিডিএসএফ পরিবার অত্যন্ত আনন্দিত এবং মুগ্ধ। আশাকরি বিডিএসএফ এর যে কোন কার্যক্রম পরিচালনায় আমরা আপনাদের পাশে পাবো।

প্রতিবেদক : আতিকুর রহমান তুহিন

লোকপ্রশাসন বিভাগ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

Spread the love

Related Posts

Add Comment

error: Content is protected !!