স্টাডি ক্যাম্পে বিডিএসএফ-তিতুমীর কলজ টিম

Reading Time: 3 minutes

আজ অনেক সুন্দর ও সফল ভাবে শেষ হল আমাদের বিডিএসএফ, সরকারী তিতুমীর কলেজ কর্তৃক আয়োজিত বার্ষিক স্টাডি ক্যাম্প। এবার আমরা গিয়েছিলাম নারায়নগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত মুরাপাড়া জমিদার বাড়ি। স্টাডি ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করে এটিকে সফল ও সার্থক করার জন্য প্রত্যেক সদস্যকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত আপনারা অত্যন্ত সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে সঙ্গে থাকাতে এটি সফল করা সম্ভব হয়েছে।

প্রিয় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে যাত্রা শুরু

আজকের স্টাডি ক্যাম্পের শুরুটা করেছি সরকারী তিতুমীর কলেজ ক্যাম্পাস থেকে। সকালবেলা বাসে উঠে কুড়িল বিশ্বরোড গেলাম।  তারপর ওখান থেকে বিআরটিসি বাসে করে কাঞ্চন ব্রীজ পৌছলাম।  ওখান থেকে অটো করে ফেরি পাড় হলাম। তারপর নৌকা করে শীতলক্ষ্যা নদী পার হলাম। সেখান থেকে অটো করে পৌছলাম আমাদের গন্তব্য মুরাপাড়া জমিদার বাড়ি।

স্টাডি ফোরাম নিয়ে স্বপ্ন শেয়ার করছেন আরিফ

সকাল ১০ টায় ওখানে পৌছে মুরাপাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের মাননীয় সহকারী অধ্যক্ষের অনুমতি নিয়ে আমাদের স্টাডি ক্যাম্পের পর্ব শুরু করা। তারপর ১১ টার দিকে বিনোদন স্বরুপ প্রীতি ফুটবল ম্যাচ আয়োজিত হলো। এখানে দুই টিমে বিভক্ত হয়ে খেলা শুরু হলো। একটি টিমের নেতৃত্বে ছিলেন জারিফ আর অপর টিমের নেতৃত্বে ছিলেন শেখ রাসেল। ফুটবল ম্যাচটিতে রাসেল টিম জারিফ টিমকে ১০-৩ গোলে পরাজিত করে। ক্লান্ত, শ্রান্ত হয়ে মুরাপাড়া জমিদার বাড়ির দিঘিতে নেমে পড়লাম। সাতার ও গোসল শেষ করে যখন পাড়ে উঠলাম তখন খুদায় পেট চো চো করছিল। দুপুরের খাবার শুরু হতে আড়াইটা বেজে যায়।

ফুটবল খেলে ক্লান্ত আমরা

খাবার শেষে আমাদের স্টাডি ক্যাম্পের মূল কাজ শুরু হয়। প্রথমে একটি বিশেষ লেকচারের মাধ্যমে আলোচনা শুরু হয়। সেখানে বিডিএসএফ নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়। আগামীতে বিডিএসএফ কে নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। সবার মূল্যবান মতামতের মাধ্যমে অনেক ভালো দিক আমাদের সামনে আসে। আশা করি আগামী বিডিএসএফ এর জন্য অনেক কাজে দিবে।

তারপর শুরু হয় বিনোদন পর্ব যেখানে গান, কৌতুক আর ব্যক্তিগত কিছু অভিজ্ঞতা  শেয়ার করার মাধ্যমে পরিবেশ চাঙ্গা করা হয়। তারপর আমাদের স্টাডি ক্যাম্পের শেষ পর্ব ছিল পুরো জমিদার বাড়িটা ঘুরে দেখা। আমরা না আসলে বাড়িটা ঘুরে না দেখলে হয়ত বুঝতেই পারতাম না এটা কত প্রাচীন ও সুন্দর একটা দর্শনীয় স্থান। অবশেষে জমিদার বাড়ি ঘুরার সময় কিছু ছবি তুললাম। সমস্ত দিনের শেষে সন্ধ্যা নামলে গাড়িতে চড়ে বসলাম। আমাদের ক্লান্ত শরীর আমাদের গন্তব্যের দিকে যাত্রা করলেও-মনটা পড়েছিল জমিদার বাড়ির দেয়ালে যেখানে ইতিহাসের গুঞ্জন শুনে এসেছি, হাজারো মানুষের পদধ্বনি শুনেছি!

জমিদার বাড়ির সামনে আমরা

সবশেষে আবারও সবাইকে ধন্যবাদ ও আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করি- আপনাদের মূল্যবান সময়, আর্থিক, পরামর্শ ও সাথে থাকার জন্যই আমাদের স্টাডি ক্যাম্পটি সফল ও সৌন্দর্যমণ্ডিত হয়েছে।

Spread the love

Related Posts

Add Comment

error: Content is protected !!